Tips & tricks

কই মাছ ধরার টোপ ২০২২-স্পেশাল কই মাছ দরার জাদুকরি টোপ

কই মাছ ধরার টোপ ২০২২

আজকে আমি এমন একটি মাছের কথা বলব যে মানুষটির সাথে এমন কোনো মানুষ নেই যে পরিচিতি নেই বাংলাদেশ। মাছটি হচ্ছে কৈ মাছ। আমরা প্রায় সবাই-ই ছোটবেলায় এ মাসটি ধরেছি কিংবা এখনো ধরে থাকি। আমরা অনেকেই অনেক ধরনের টোপ ব্যবহার করে এই মাস ধরে থাকে মূলত এ মাসটি হচ্ছে রাক্ষসে মাছ। যার কারণে যে ধরনের টপ ব্যবহার করেন না কেন মূলত সে টোপ গুলে মাছ গুলো খেয়ে থাকে।

মূলত আমরা এ মাছগুলো  দরে থাকে বিভিন্ন ধরনের টোপ দিয়ে যেমন কেচো গ্রামে ভাষা বলা হয় বল্লারটোপ এবং চ্যাপা শুটকি।কিন্তু এগুলো অনেকেই আমরা নোংরা হিসেবে দেখে থাকি কিংবা অনেকেরই এ টোপ দিয়ে মাছ ধরা পছন্দ হয় না কিংবা এ টোপ দিয়ে মাছ ধরলে তারা খেতে চায় না। এবার আপনাদের এমন একটি টোপ সম্পর্কে আজকে বলব যেটি খুবই মানসম্মত এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রেখে আপনারা এই মাছগুলো সে টোপ দিয়ে স্বীকার করতে পারবেন। চলুন আর দেরি না করে তাহলে কি কি উপাদান দিয়ে কই মাছ ধরার টোপ ২০২১ টোপ গুলো তৈরি করতে হয় তা নিচে বিস্তারিত জেনে আসি।

প্রস্তুত প্রণালী

  • দুই থেকে তিন পিস কিংবা পরিমাণমতো মিল্ক বিস্কুট
  • এক মুঠো ময়দা কিংবা পরিমাণমতো ময়দার
  • পিপড়ার ডিম পরিমাণমতো
  • পরিমান মত পানি

কই মাছ ধরার টোপ ২০২১

কই মাছ দরার জাদুকরি টোপ তৈরি

  1. প্রথমে আপনাকে একটি পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন বাটি নিতে হবে।
  2. তারপর সে বাটির মধ্যে একমুঠো ময়দা এবং তিনটি মিল্ক বিস্কুট রাখতে হবে।
  3. তারপর মিল্ক বিস্কুট গুলো ভালোভাবে গুড়ো করে নিতে হবে চাইলে আপনারা ব্লেন্ডার মেশিনে বিস্কুট গুলো ভালো হবে গুঁড়ো করে নিতে পারেন।
  4. তারপর সে বিস্কুটের গুড়ের সাথে ময়দা আলতোভাবে অনেকক্ষণ মিশাতে হবে যাতে ময়দা এবং বিস্কুটের গুঁড়ো মিশিয়ে একাকার হয়ে যায়।
  5. তারপর ময়দা আর বিস্কুটের গুঁড়ো মিশে গেলে সেখানে অল্প পরিমাণে পানি দিয়ে দুটি মিশ্রণ হাত দিয়ে মিশ্রিত করতে থাকেন।একবারে পানি ঢেলে দিবেন না কারন পানির মাত্রা বেশি হয়ে গেলে টোপ নরম হয়ে যাবে এবং পুনরায় আপনাকে আটা এবং বিস্কুটের গুঁড়ো মিশাতে হবে ফলে টোপটা গুণগতমান তেমন ভালো থাকবে না।
  6. তারপর আস্তে আস্তে পানি দিয়ে টোপ বানানো শেষ হলে তার সাথে অল্প পরিমাণ পিপড়ার ডিম মিশিয়ে ভালোভাবে বাটির মধ্যে ডলতে থাকেন।
  7. তারপর আবার অল্প পরিমাণ ডিম কিংবা পিপড়ার ডিম মিশিয়ে ভালো হবে মিশ্রিত করে তা বল আকারে বাটিতে রেখে দিন।
  8. তারপর আপনার যে টোপ তৈরি হবে সেটির দিয়ে যেকোনো জায়গায় কই মারার জন্য উপযুক্ত একটি টোপ তৈরি হবে। এভাবে কই মারার জাদুকরী টপ আপনারা তৈরি করতে পারেন।

কিছু নির্শেনা

অনেকে আছে যারা কেঁচোর লার্ভা কিংবা চ্যাপা শুটকি মাছ দিয়ে কই ম্ছ দরতে পছন্দ করি না কিংবা স্বীকার করতে নোংরামি মনে হয়। তারা যদি আমার দেখান কই মাছ ধরার টিপস কিংবা উপরে যে কই মাছ ধরার টোপ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দেওয়া হয়েছে সেই তথ্যটি অনুসরণ করেন তাহলে আপনারা খুব সহজেই যেকোন জায়গা থেকে কৈ মাছ শিকার করতে পারবেন। আমাদের দেশে প্রায় সব জায়গায় এই মাসটির বিচরণ রয়েছে যেমন খাল-বিল পুকুর এমনকি বৃষ্টির দিনে মুষলধারে বৃষ্টি হলেও এ মাসটি পানি থেকে ডাঙায় উঠে আসে।

বর্ষার সময় অন্য কোন মাছ কোথাও না থাকলেও এই কোন মাসটি সব জায়গায় বিরাজমান থাকে তাই আমরা অনেক সময় এ মাসটি স্বীকার করার জন্য অনেক কৌশল অবলম্বন করি কিন্তু অনেকে আছে যারা কৈ মাছ শিকার করার ইচ্ছা থাকলেও তারা এই মাসে যে আঁধার দিয়ে কিংবা টোপ দিয়ে মাছ শিকার করে থাকে তা দেখে তারা তৃপ্তি পায় না।তাই তারা যদি আমার দেখানো কৈ মাছের টোপ তৈরি পদ্ধতি অবলম্বন করে তাহলে তারও অনায়াসে এই কৈ মাছ শিকার করতে পারবেন এবং তা রান্না করে খেতে পারবে।