health tips

ত্বক ফর্সা করার ১০টি ঘরোয়া উপায়

ত্বক ফর্সা হওয়ার সহজ ঘরোয়া উপায়, আজকে আপনাদের ত্বক ফর্সা হওয়ার কিছু জাদুকরী ঘরোয়া উপায় বলবো। সেই জাদুকরী ত্বক ফর্সা হওয়ার সহজ ঘরোয়া উপায় গুলো হল। আমরা অনেকেই আছি যারা রূপচর্চা করার ওস্তাদ’। তারা বিভিন্ন ধরনের ত্বক ফর্সা হওয়ার ক্রিম ব্যবহার করে। যার ফলে তাদের অল্প বয়সে তাদের মুখে বিভিন্ন ধরনের মেছতা দাগ সৃষ্টি হয়।তাদের উদ্দেশ্যে একটি কথা বলব আপনারা যদি কিছু সহজ বিষয় মাথায় রেখে চলেন তাহলে আপনাদের ত্বক খুব ফর্শা থাকবে। তো আজকে সেরকম কিছু ত্বক ফর্সা হওয়ার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে বলবো।ত্বক ফর্সা করার ১০টি ঘরোয়া উপায় নিচে দেওয়া হলো।

ত্বক ফর্সা করার সহজ ঘরোয়া উপায়

কিছু মানুষ আছে যারা খুব আয়োজন করবে রূপচর্চা করে। কিন্তু তারা জানো না কিছু নিয়ম মেনে চললে তারা প্রাকৃতিক উপায়ে সুন্দর থাকবে। আমাদের দেশের মানুষের মনে একটি কথাই আসে যে বিভিন্ন ধরনের ক্রিম ইউজ করলে মনে হয় অনেক ফর্সা হয়ে যাব। কিন্তু এই কথাটি ভুল। আপনার সাময়িকভাবে ফর্সা হবে কিন্তু কোন একটু সময় এসে আপনার মুখের বিভিন্ন ধরনের দাগ মেছতা হয়ে যাবে। তখন চাইল আপনি সে দাগগুলো বিভিন্ন ধরনের ক্রিম ইউজ করে সরাতে পারবেন না। তো তার জন্য আপনাদেরকে আজকে কিছু সহজ ত্বক ফর্সা করার ঘরোয়া উপায় বলে দিবো।

ঘরোয়া উপায়ে ত্বক ফর্সা হওয়ার টিপস্ সমূহ:

  •  প্রথমেই একটি কথা বলব তা হচ্ছে পর্যাপ্ত ঘুম। যদি আপনি ঘুম কম পারেন কিংবা রাত জাগেন বেশি তাহলে আপনার শরীরের জন্য যেমন এটি ক্ষতি তেমনি আপনার ত্বকের জন্য ক্ষতি। আপনি যদি বেশি রাত জাগেন তাহলে আপনার ত্বকের উজ্জলতা আস্তে আস্তে হারিয়ে যাবে। তার জন্য আমাদের প্রচুর ঘুম পারতে হবে।
  • দুই নাম্বার উপায় সমূহ হলো আপনাকে প্রচুর পরিমাণ পানি পান করতে হবে।কারণ আপনি যদি বেশি বেশি পানি পান করেন তাহলে আপনার শরীরের হাইড্রেট বেড়ে যাবে।আর হাইড্রেট বেড়ে যাওয়ার কারণে আপনার মুখের উজ্জলতা দিন দিন বৃদ্ধি পাবে।
  • আপনি যদি মিষ্টি ভালবেসে থাকেন তাহলে এটা হচ্ছে আপনার জন্য খুব খারাপ সংবাদ। অতিরিক্ত চিনি/মিষ্টি খাবার খাওয়া যাবেনা।কারণ অতিরিক্ত মিষ্টি জাতীয় খাবার চামড়া টানটান করে মুখের ভাজ ফেলে দেয়। অতিরিক্ত কোলাজেন শরীরের জন্য ভালো না
  • সপ্তাহে একদিন অন্তত খুব ভালো করে আপনার মুখটি পরিষ্কার করবেন। আপনি বিভিন্ন ধরনের ঘরে তৈরি ফেসওয়াশ ব্যবহার করতে পারেন।কারণ ঘরে তৈরি ফেসওয়াশ ব্যবহার করে আপনার মুখের যত্ন নিলে আপনার ত্বক ভালো থাকবে। বাজারে বিভিন্ন ধরনের প্রসাধনী ফেসওয়াশ পাওয়া যায়। সেগুলো ব্যবহার করলে বরাবরই তা আপনার স্কিনের জন্য ক্ষতির কারণ হবে।
  • প্রতিদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে আপনার ফেস্টিভ খুব ভালো ভাবে পরিষ্কার পানি দিয়ে ধৌত করবেন। প্রতিদিন রাতে যদি এই নিয়মটি মেনে ঘুম আসেন তাহলে আপনার ত্বক ফর্সা হবে। এর চেয়ে বেটার হয় যদি আপনি গোলাপ জলের পানি গুলো দিয়ে আলতোভাবে আপনার ফেসটা পরিষ্কার করে বিছানায় জান। আপনার মুখে ধরন অনুযায়ী আপনি বিভিন্ন ধরনের ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিতে পারেন।
  •  আপনি ঘরোয়া উপায়ে একটি ফেসওয়াশ তৈরি করতে পারেন। তা হল চাউলের ফাকির সাথে চন্দনের গুঁড়া মিশিয়ে তাসকিনে লাগিয়ে কিছুক্ষণ রাখুন। তারপর তা ধুয়ে ফেলুন।

রূপচর্চায় দুধ ও কাঁচা হলুদ

আমরা জানি দুধ ও কাঁচা হলুদের অনেক গুণাগুণ রয়েছে।সেই আদিকাল থেকে এগুলোর ব্যবহার দিন দিন বেড়েই চলেছে। এই উপাদানগুলো ত্বক ফর্সা হওয়ার জন্য অনেক ভূমিকা পালন করে। আজকে আপনাদের রূপচর্চার জন্য দুধ ও কাঁচা হলুদের উপকারিতা সম্পর্কে বল। আপনি প্রতিদিন এক গ্লাস উষ্ণ গরম দুধের সাথে এক চা চামচ হলুদ মিশিয়ে তা পান করুন। এভাবে যদি আপনি এক মাস পান করতে পারেন তাহলে আপনার ত্বকের অনেক পরিবর্তন আসবে। নিয়মিত দুধ এবং হলুদ পান করলে আপনার ত্বক ভেতর থেকে ফর্সা হয়ে উঠবে।

আপনি যদি দুধের সাথে হলুদ মিশ্রিত হবে খেতে না পারেন তাহলে আর একটি উপায় আছে। সেটা হচ্ছে আপনি একটুকরো হলুদ নিয়ে তা টুকরো টুকরো করে কেটে এক গ্লাস দুধের সাথে গরম করবেন।যখন দেখবেন দুধের রং হলুদ বর্ণ ধারণ করেছে তখন তা সে কে সে দুধ খেতে পারেন।

আরো পড়ুন:

ওজন কমানোর টিপস (ওজন কমাতে শসার ভূমিকা)