News

দেখুন গলায় জুতার মালা পরিয়ে শিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসকে মানসিকভাবে হত্যা করা হলো

দেখুন গলায় জুতার মালা পরিয়ে শিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসকে মানসিকভাবে হত্যা করা হলো । আজকে আমরা আপনাদের সাথে একটি গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা শেয়ার করব ।আপনারা হয়তো ইতোমধ্যে যেনে গেছেন যে শিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসকে জুতার মালা পড়ানো হয়েছে। কিন্তু কী কারণে তাকে জুতার মালা পড়ানো হয়েছে? সে বিষয়ে সম্পর্কে যদি জানতে চান তাহলে অবশ্যই আমাদের এই পোষ্ট সম্পন্ন করতে হবে।

নড়াইলের স্কুল শিক্ষক স্বপন কুমার দাস কে জুতার মালা পড়ানো হয়েছে। এটি মূলত সবাই ভাবতেছে পরিকল্পিতভাবে তাকে জুতার মালা পড়ানো হয়েছে। কিন্তু এ কথাটি কি আদৌ কোনো যুক্তিযুক্ত কিংবা কোন প্রমাণ আছে ?এই বিষয় বিশ্লেষণ করতে গিয়ে বের হয়ে আসে যে আসলে তাকে পরিকল্পিতভাবে জুতার মালা পড়ানো হয়েছে। এমনকি যখন তার সাথে এই অমানবিক কাজটি করা হয়েছে তখন সেখানে উপস্থিত ছিলেন সেখানকার  থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা বৃন্দ। যখন তাকে জুতার মালা পড়ানো হয়েছে তখন স্বপন কুমার দাস বলেছেন তাকে মানসিক ভাবে হত্যা করা হয়েছে।

 এই কাজটি করার কারণে নড়াইল বাঁশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর নাখোশ হয়েছে। তারা বলছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী থাকা সত্বেও কিভাবে এই জঘন্যতম কাজ করা হলো। এই কাজটি করার জন্য সেখানকার বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বৃন্দ এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি আবেদন করেছে। সেই সাথে কিছুদিন আগে সাভারে বল কুমার সরকার কে খুন করা হয়েছে। সেগুনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির চেয়ে সে সকল শিক্ষার্থীরা।

বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতির চট্টগ্রাম অঞ্চলের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আবু তাহের চৌধুরী শনিবার সন্ধ্যায় পরিবেশবাদী সংগঠন পিপলস ভয়েসের প্রতিবাদ কর্মসূচি ও প্রদীপ প্রজ্বালন কর্মসূচিতে এ সকল বিস্তারিত বিষয় নিয়ে আলোচনা  করেন। এই আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছিল চট্টগ্রাম নগরের চেরাগী পাহাড় মোড়ে ।

অধ্যাপক আবু তাহের চৌধুরী বলেন, সমাজ-রাষ্ট্র যে পর্যায়ে গেছে, সেখানে হাজার হাজার জিতু তৈরি হয়েছে। নষ্ট রাজনীতি ও ভ্রষ্ট শিক্ষার কারণে এসব জিতু তৈরি হচ্ছে। শিক্ষায় গলদের কারণেই এ সংকট।তিনি আরো আফসোস করে বলেন শিক্ষককে জুতার মালা পড়ানো এবং শিক্ষককে হত্যা করার কারণে শিক্ষা মন্ত্রী কোন একটি বিবৃতি দিবেন। সেইসাথে তিনি বলেন শিক্ষামন্ত্রী উচিত ছিল যে শিক্ষককে হত্যা করা হয়েছে এবং যাকে জুতার মালা পড়ানো হয়েছে তাদের সাথে যোগাযোগ করে তাদেরকে শাস্তিমূলক আশ্বাস দেওয়া।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন দাবি জানিয়েছে যে মির্জাপুরের শিক্ষকের গলায় জুতার মালা এবং  সাভারের শিক্ষক হত্যাকাণ্ডের আসামিদের যেন দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয়। এই প্রতিবাদ কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সপ্তম ব্যাচের ছাত্র ও প্রাক্তন ছাত্রনেতা ও সিপিবির জেলা কমিটির সভাপতি অশোক সাহা। সংগঠনের সহপ্রচার সম্পাদক মোহম্মদ ইউছুপের সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য দেন সহসভাপতি ও চাকসু ভিপি মাহজারুল হক শাহ চৌধুরী, আবুল কদর, চাকসুর ভিপি নাজিম উদ্দীন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. গিয়াস উদ্দিন, কামরুল হাসান, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ সগীর আহমদ।