Poetry

২১ শে ফেব্রুয়ারি কবিতা

২১ শে ফেব্রুয়ারি কবিতা,একুশে ফেব্রুয়ারি 1952 সালে একুশে ফেব্রুয়ারি বাংলা ভাষার জন্য অনেক মানুষ প্রাণ দিয়েছে। বাংলা ভাষা রাষ্ট্রভাষা করার জন্য তরুন ছাত্রনেতা রফিক জব্বার বরকত আরো অনেকেই সেদিন প্রাণ দিয়েছিল। এই একুশে ফেব্রুয়ারি ঘিরে আমরা বাঙালি জাতি গভীর শ্রদ্ধার সাথে থাকা শ্রদ্ধাঞ্জলি জানাই। এছাড়াও আমরা এই দিনটিতে বিভিন্ন ধরনের দেশকেন্দ্রিক ভাষাকেন্দ্রিক ছোট মঞ্চ কবিতা আবৃত্তি বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান করে থাকি। যাতে তরুণ প্রজন্ম এ দিনটিকে স্মরণ করে এবং শ্রদ্ধার সাথে পালন করে।

২১ শে ফেব্রুয়ারি কবিতা

একুশে ফেব্রুয়ারিকে ধীরে সেদিন যে অনুষ্ঠান হয় সেখানে অনেকেই মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে কবিতা আবৃতি করে থাকে। বর্তমান ইন্টারনেটের যুগ অনলাইনে সবকিছু পাওয়া যায়। যার ফলে তারা নেট মাধ্যমে একুশে ফেব্রুয়ারিকে নিয়ে বিভিন্ন ধরনের কবিতা অনুসন্ধান করে। আজকে আমরা কিছু আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের কবিতা আপনাদের সাথে শেয়ার করব। আশা করি কবিতাগুলো আপনাদের অনেক ভালো লাগবে। যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই শেয়ার করে দিবেন।

ভাষা সেতো মায়ের বুলি

প্রাণের চেয়েও প্রিয় জানি

যে ভাষাতে প্রাণ জুড়াল

সবার সুখের তৃষ্ণ মিঠালো

সেইতো মোদের মধুর ভাষা

মায়ের ভাষা বাংলা ভাষা

ভাষা সেতো স্লোগান মুখর যুবকের ভালবাসা

যে ভাষাতে সদা থাকে জাগি

সে ভাষার কোন দশা আজি

তারা মানেনাতো বাঁধা ভঙ্গ করেত ধারা

হায়নার গর্জন লঙ্গিয়ে চলে

হুংকারে হয় ধনি পতি ধনি

রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই

বাংলা চাই

ভাষা সেতো রক্তে ভেজা ২১শের দুপুর

রক্ত! সেতো নতুন সূর্যদয়

যে ভাষার লাগি রক্ত দিয়াছিলো বাঙ্গালী জাতী

ত্যাগে বেজেছিলো সাম্যের গীতি

পৃথিবীর মানুষ অভাব রয়

বাংলা ভাষার হলো জয়।

আরো পড়ুন: ২১ শে ফেব্রুয়ারি পিকচার, পোস্টার ডিজাইন ২০২২

২১ শে ফেব্রুয়ারি দেয়ালিকা,দেয়ালচিত্র ও আলপনা ডিজাইন,পিক

২১ শে ফেব্রুয়ারি ছোট কবিতা

মনে পড়ে বায়ান্নর একুশে ফেব্রুয়ারী,

লাখো বাঙালির কাতর চিত্তে করুন আহাজারি.

একুশ তুমি বাংলার মানুষের হৃদয় ভরা আশা,

তোমার কারণে পেয়েছি আজ কাঙ্খিত মাতৃভাষা.

রক্ত ঝরালো সালাম, বরকত, রফিক, শফিক, জব্বার,

বায়ান্নর সেই করুন কাহিনী মনে পড়ে বারবার.

স্মৃতির পাতায় ভেসে ওঠে সেই বিষন্ন দিনের কথা,

যত ভাবি ততই যেন মনে পাই বড় ব্যথা.

প্রতিবাদে মুখর দৃঢ় চিত্তে বাংলার দামাল ছেলে,

আরো আছে কত শ্রমিক, যুবক, নারী, কৃষক ও জেলে.

অবশেষে দাবি মেনে নিতে বাধ্য হলো সরকার,

বাঙালিরা পেল মাতৃভাষার সোনালী দিবাকর.

রক্তের বিনিময়ে পেয়েছি আজ কাঙ্খিত মাতৃভাষা,

একুশ তুমি চির অমর তুমি আমাদের ভালবাসা…

পরিশেষে একটি কথা বলব সেটি হচ্ছে এই একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। এ দিবসটি কামরা শ্রদ্ধার সাথে পালন করব এবং তরুণ যুব সমাজকে আমরা এই দিনটি সম্পর্কে যে ইতিহাস রয়েছে তা বলার চেষ্টা করব। যাতে তাদের মধ্যে দেশপ্রেম এবং শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালবাসা জন্ম নেয়। কারণ আগামী দিনের ভবিষ্যৎ এই তরুণ সমাজ। যার ফলে এই দেশের সকল ইতিহাস এবং ঐতিহ্য সম্পর্কে তাদের সম্পূর্ণ ধারণা থাকতে হবে। তাহলে তাদের মধ্যে দেশপ্রেম দেশের জন্য ভালোবাসা এবং তাদের মধ্যে কোন দুর্নীতি থাকবেনা।