History

ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ জাতীয় দিবস

ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ জাতীয় দিবস । আপনি কি 7 ই মার্চের ইতিহাস সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন? তাহলে আপনি সঠিক পোস্টে ভিজিট করেছেন। আজকে আমরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক 7 ই মার্চের ভাষণ জাতীয় দিবস সম্পর্কে একটি প্রতিবেদন আপনাদের সাথে শেয়ার করব। যদি আপনি 7 ই মার্চের বিস্তারিত ইতিহাস জানতে চান তাহলে আমাদের এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়বেন।

সাতই মার্চ ইতিহাস

এখন আমরা আপনাদের সাথে ঐতিহাসিক 7 ই মার্চের ইতিহাস শেয়ার করব। 1971 খ্রিস্টাব্দে 17 ই মার্চ এর ভাশন ঢাকার রমনা অবস্থিত রেসকোর্স ময়দানের বর্তমান সরোয়ারদী উদ্যানে আনুষ্ঠানিক জনসভায় শেখ মুজিবুর রহমান ইতিহাসিক ভাষণ দিয়েছিলেন।তিনি উক্ত ভাষণ বিকেল ২টা ৪৫ মিনিটে শুরু করে বিকেল ৩টা ৩ মিনিটে শেষ করেন। উক্ত ভাষণ ১৮ মিনিট স্থায়ী হয়।২০১৭ সালের ৩০ শে অক্টোবর ইউনেস্কো এই ঐতিহাসিক 7 ই মার্চের ভাষণকে ঐতিহাসিক দলিল হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

Read More>> মহান স্বাধীনতা দিবস রচনা 2022

সাতই মার্চ পটভূমি

আপনারা হয়ত বা অনেকের 7 মার্চের পটভূমি সম্পর্কে তেমন কোন ধারণা নেই। আজকে আমরা আপনাদের সাথে 7 ই মার্চের পটভূমি বিস্তারিত আলোচনা করব। আশা করি পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়বেন।

১৯৭০ খ্রিষ্টাব্দে আওয়ামী লীগ পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে।কিন্তু পাকিস্তানিরা এই দলের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে বিলম্ব শুরু করে। মূলত তাদের উদ্দেশ্য ছিল যে কোন ভাবেই পশ্চিম পাকিস্তানী রাজনীতিবিদদের হাতে ক্ষমতা কুক্ষিগত করা হবে। যখন পরিস্থিতি অনেকটাই খারাপের দিকে তখন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জেনারেল ইয়াহিয়া খান 3 মার্চ জাতীয় পরিষদ অধিবেশন আহ্বান করেন। কিন্তু অদৃশ্য কোন শক্তির কারণে 1 মার্চ এই অধিবেশন অনির্দিষ্ট কালের জন্য মুলতবি ঘোষণা করেন।

৭ই মার্চের ছবি

এই সংবাদ শোনার পর পূর্ব পাকিস্তানীরা বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। তারপর 2 মার্চ আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ঢাকায় এবং 3 মার্চ সারাদেশে একযোগে হরতাল পালিত হয়। তারপর তিনি পল্টন ময়দানে অনুষ্ঠিত এক বিশাল জনসভায় সমগ্র পূর্ব বাংলার সর্বাত্মক অসহযোগ আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন।ই পটভূমিতেই ৭ই মার্চ রেসকোর্স ময়দানের জনসভায় বিপুল সংখ্যক লোক একত্রিত হয়; পুরো ময়দান পরিণত হয় এক জনসমুদ্রে। এই জনতা এবং সার্বিকভাবে সমগ্র জাতির উদ্দেশ্যে শেখ মুজিবুর রহমান তার ঐতিহাসিক ভাষণটি প্রদান করেন।

সাতই মার্চের স্বীকৃতি ও প্রতিক্রিয়া

7 মার্চের ভাষণকে কত সালে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি দেওয়া হয় ।সেই সম্পূর্ণ তথ্য আপনাদের সাথে শেয়ার করব। অনেকেই হয়তো বা এ তথ্যটি ভালোভাবে জানে না। তাদের উদ্দেশ্যে আজকে আমরা 7 মার্চের  কিভাবে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে মর্যাদা পেল সে সকল বিস্তারিত খুঁটিনাটি তথ্য এখন আপনাদের সাথে শেয়ার করব।

২০১৭ সালের ৩০শে অক্টোবরে ইউনেস্কো ৭ই মার্চের ভাষণকে “ডকুমেন্টারি হেরিটেজ” (বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য) হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। এই ভাষণটি সহ মোট ৭৭ টি গুরুত্বপূর্ণ নথিকে একইসাথে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। ইউনেস্কো পুরো বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ দলিলকে সংরক্ষিত করে থাকে। ‘মেমোরি অফ দ্য ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টারে (এমওডব্লিউ) ’ ৭ মার্চের ভাষণসহ এখন পর্যন্ত ৪২৭ টি গুরুত্বপূর্ণ নথি সংগৃহীত হয়েছে।এর প্রতিক্রিয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একে ‘ইতিহাসের প্রতিশোধ’ হিসেবে তুলনা করেছেন। কারণ স্বাধীন দেশে দীর্ঘসময় এই ভাষণের প্রচার নিষিদ্ধ ছিল।

২০১৭ সালের ২০ নভেম্বর রুল জারির পর অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সাংবাদিকদের বলেছিলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ৭ মার্চ ভাষণ দিয়েছিলেন, মঞ্চটি পুনর্নির্মাণে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না- তা জানতে চেয়ে রুল দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে ৭ মার্চকে জাতীয় ঐতিহাসিক দিবস হিসেবে কেন ঘোষণা করা হবে না- তাও জানতে চাওয়া হয়েছে

৭ই মার্চের বঙ্গবন্ধুর ভাষণের গুরুত্ব

বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের পেছনে 7 ই মার্চের বঙ্গবন্ধুর ভাষণের গুরুত্ব বলে শেষ করা যাবেনা। 1971 সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের বঙ্গবন্ধুর 7 মার্চের ভাষণ সমগ্র বাঙালি জাতিকে ঐক্যবদ্ধ ও স্বাধীনতা মন্ত্রে উজ্জীবিত করেছিল। তার সেই হৃদয় কাঁপানো ভাষণ শুনে বাংলার 30 লাখ মানুষ জীবন উৎসর্গ করেছিল যুদ্ধ করার জন্য। 7 মার্চের ভাষণের মূল লক্ষ্য ছিল পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ শাসন-শোষণ ও নিয়ন্ত্রণ থেকে বাঙালি জাতিকে মুক্তি করা। বঙ্গবন্ধুর ভাষণের আরেকটি উল্লেখযোগ্য দিক হল এর কাব্যিক গুন শব্দশৈলী ও বাক্য নিবাস। বঙ্গবন্ধুর এই 7 মার্চের ভাষণ কোন লিখিত ভাষণ ছিল না।

বঙ্গবন্ধুর 7 মার্চের ভাষণের কারণেই আজ আমরা পেয়েছি লাল সবুজের পতাকা। আজ আমরা পেয়েছি স্বাধীন সার্বভৌমত্ব একটি বাংলাদেশ। তার 7 মার্চের ভাষণ  সংক্ষিপ্ত আকারে দুলাইন আপনাদের জন্য।

এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম। এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম। রক্ত যখন দিয়েছি আরও রক্ত দেব তবুও এই দেশকে স্বাধীন করে ছাড়বো ইনশাল্লাহ।

৭ই মার্চের ছবি

৭ই মার্চের ছবি

৭ই মার্চের ছবি

প্রশ্ন: ৭ মার্চ কি দিবস?

উত্তর: ৭ মার্চ ঐতিহাসিক জাতীয় দিবস।