Tips & tricks

দোকানের সুন্দর নামের তালিকা-ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানের নতুন নাম

দোকানের সুন্দর নামের তালিকা,আজকে আপনাদের দোকানের সুন্দর নামের তালিকা কিছু তথ্য শেয়ার করব। আমরা অনেকেই আছি যারা বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা করতে চাই। কিন্তু আমরা সেভাবে প্রতিষ্ঠানের কি নাম দিব তা খুঁজে পায় না কিংবা নাম খোঁজার জন্য অনেকের পরামর্শ নিতে হয়। যদিও কিছু নাম খুঁজে পাওয়া যায় তারপরও দেখা যায় যে সে নামের কিছু প্রতিষ্ঠান আগে থেকেই বাজারে আছে। তাহলে আমরা কিভাবে নতুন নাম খুজে বের করব? আজকে আপনাদের দোকানের সুন্দর নামের তালিকা খুঁজে বের করার একটি সহজ কৌশল শেখাবো। তাহলে আপনারা খুব সহজেই আপনাদের দোকানের সুন্দর নামের একটি তালিকা তৈরি করতে পারবেন। চলুন দেরী না করে দোকানের সুন্দর নামের তালিকা গুলো দেখে নেই।

বিভিন্ন কোয়ালিটির দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নামের তালিকা

  • খাবার দোকানের সুন্দর নামের তালিকা।
  •  মুদির দোকানের সুন্দর নামের তালিকা।
  • মিষ্টির দোকানের সুন্দর নামের তালিকা।
  • ঔষধের দোকানের সুন্দর নামের তালিকা।
  • মোবাইল দোকানের সুন্দর নামের তালিকা।

সুন্দর খাবার দোকানের নামের তালিকা

আমরা অনেকেই বিভিন্ন ধরনের খাবার দোকান কিংবা বড় রেস্টুডেন্ট দিয়ে থাকি। কিন্তুু এই সংস্থা প্রতিষ্ঠান দেওয়ার আগে নাম নির্বাচন করতে হয়। তখন ব্যবসায়ীরা একটু সমস্যার মধ্যে পড়ে যায়।তখন তারা চিন্তা করে কিভাবে খাবার দোকানের একটি সুন্দর নাম দেওয়া যায়।

যদি আপনাদের ছোট খাবারের দোকান হয় তাহলে আপনারা আপনাদের দোকানে নামের শেষে দোকানের টাইটেল সংযোগ করে দিবেন। যেমন:

হারুন হোটেল এন্ড রেস্টুডেন্ট।

কাশেম হোটেল এন্ড রেস্টুডেন্ট।

আকাশ হোটেল এন্ড রেস্টুডেন্ট।

মাসুদ হোটেল এন্ড রেস্টুডেন্ট।

রিপন হোটেল এন্ড রেস্টুডেন্ট।

এরকম নিয়মে আপনার হোটেলের নামটি শনাক্ত করতে পারেন।

আর যদি আপনাদের বৃহৎ কোন প্রতিষ্ঠান হয় জন বড় পর্যায়ের কোনো রেস্টুডেন্ট। তাহলে আপনারা একটি কাজ করতে পারেন তাহলো বর্তমান বাজারে যে রেষ্টুরেন্টগুলো খুব ভালো সার্ভিস দিচ্ছে তাদের নাম কিনতে পারেন। তাহলে আপনাদের রেস্টুরেন্টে প্রতি জনগণের একটি আস্থা এবং বিশ্বাস থাকবে এবং আপনাদের বিজনেস অনেক ভালো হবে। আপনারা যে সকল নাম দিতে পারেন।

কাচ্চি ওয়ালা রেসটুডেন্ট

কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্ট

ভিক্টোরিয়া রেস্টুডেন্ট

সকাল সন্ধ্যা রেস্টুডেন্ট

গ্রীন বিলাস রেস্টুরেন্ট

সুগন্ধা রেস্টুরেন্ট

মুদির দোকানের নামের তালিকা

অনেক মুদির দোকান দার আছে যারা দোকান দেওয়ার সময় নাম নির্বাচন না করেই দোকান দিয়ে দেয়। পরে যখন তাদের দোকানের সফলতা আসে তখন অনেক ক্রেতাই আছে সে দোকানের নাম জানতে চাই। তখন সেই দোকানদার অনেক সমস্যার মধ্যে পড়ে যায়। আমরা অনেকেই আছি যারা দোকান দেওয়ার আগে অনেক সুন্দর একটি নাম নির্বাচন করে নেই। তো আজকে আপনাদের মুদির দোকানের নাম সম্পর্কে কিছু ধারণা দেবো। মুদির দোকানের সহজ কিছু নিয়ম এ আপনারা দোকানের নাম নির্বাচন করতে পারবেন। যেমন

ভাই ভাই স্টোর

স্বপন স্টোর

মামা ভাগ্নে স্টোর

টু ব্রাদার্স স্টোর

থ্রি ব্রাদার্স স্টোর

করিম স্টোর

এরকম বিভিন্ন ধরনের নাম রয়েছে যেগুলো আপনি সিলেক্ট করতে পারেন।তবে যে নামে ব্যবহার করেন না কেন তার শেষে স্টোর নামটি সংযুক্ত করে দিবেন তাহলে কাস্টমার ভাববে যে এটি একটি মুদির দোকান।

মিষ্টির দোকানে নাম

আমাদের সমাজে আমরা সবাই জানি যে মিষ্টির দোকান মূলত হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ দিয়ে থাকে।বর্তমান সময়ে মুসলমানরা এ ব্যবসার দিকে ঝুঁকে পড়েছে। আমরা যারা মিষ্টির দোকান করি কিংবা করবো তাদের একটি কথা বলতে চাই সেটি হচ্ছে যে মিষ্টির দোকান এর নাম নির্বাচন করার আগে।নামের শেষে আপনারা অবশ্যই মিষ্টান্ন ভান্ডার লিখে দিবেন। যেমন

ঠাকুর মিষ্টান্ন ভান্ডার

রঞ্জিত মিষ্টান্ন ভান্ডার

পলাশ মিষ্টান্ন ভান্ডার

গোপাল মিষ্টান্ন ভান্ডার

সঞ্জয় মিষ্টান্ন ভান্ডার

ঔষধের দোকানের নামের তালিকা

বর্তমান সময়ে আমাদের দেশের জনপ্রিয় একটি ব্যবসা হচ্ছে ওষুধের ব্যবসা। যতই দিন যাচ্ছে এই ওষুধের ব্যবসা ততই বেড়ে চলেছে।কারণ বর্তমান সময়ে মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক কমে গেছে। যার কারণে প্রায় সময়ই সবাই ওষুধের ওপর নির্ভরশীল থাকি। এ জন্য অনেক মানুষ আছে যারা এই ব্যবসা বেছে নিয়েছে।কিন্তু এ ব্যবসা করার আগে তারা সুন্দর একটি নাম দিয়ে ওষুধের ব্যবসা পরিচালনা করতে চায়। তা আপনারা যারা ঔষধের ব্যবসা করতে চান তারা যেই নামে দেন না কেন নামের শেষে ঔষধালয় কিংবা ফার্মেসি নামটি সংযোগ করে দিবেন। তাতে আপনার দোকানের নামের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে। যেমন:

করিম ফার্মেসি

রহিম ফার্মেসি

মোতালেব ফার্মেসি

খান ফার্মেসি

মোবাইলের দোকানের নাম

বর্তমান সময়ে কোন মানুষই মোবাইল ফোন ছাড়া চলতে পারে না। তার জন্য মার্কেটে এখন অনেক মোবাইলের দোকান হয়েছে। বিভিন্ন নামের এবং বিভিন্ন ব্র্যান্ডের লোগো ব্যবহার করে তারা দোকান গুলো পরিচালনা করতে চাই। কিন্তু অনেক মানুষ আছে যারা নতুন করে এই মোবাইল ফোনের দোকান দিতে চাচ্ছে।অনেকে দেখা যায় যে জনপ্রিয় মোবাইলের ব্যান্ডের নাম গুলো কিনে নিয়ে তারা দোকান পরিচালক করতেছে কিন্তু এই ব্র্যান্ডের নাম গুলো কিনতে তো অনেক টাকার প্রয়োজন।তাই যারা স্বল্প টাকা নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে চাচ্ছে তারা এনাম কেনার মত সাধ্য তাদের নেই। আপনারা যে নামে ব্যবহার করেন না কেন তার সাথে মোবাইল কিংবা মোবাইল সেন্টার কিংবা মোবাইল রিস্টোর এরকম কিছু নাম সংযোগ করে দিবেন।তাতে আপনার দোকানের নামের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে। নতুনদের জন্য আজকে কিছু নতুন টেকনিক দেখাবো নাম দেওয়ার। যেমন

আদিবা মোবাইল স্টোর

খালেক মোবাইল স্টোর

খান মোবাইল স্টোর

রহিম মোবাইল সেন্টার

পরিশেষে আপনাদের একটি কথায় বন্ধুবর যদি আমাদের এই দোকানের নাম এর পোস্টটি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই তা শেয়ার করে দিবেন এবং একটি কমেন্ট করে দেবে। কারণ আপনার একটি শেয়ার অনেকের চিন্তা দূর করে দেবে। সেই সাথে আমাদের এই পোস্টের একটি এডে ক্লিক করে দিবেন। আপনাদের একটি লাইক আমাদের অনেক বড় অনুপ্রেরণা।

আরো পড়ুন:

আনঅফিসিয়াল ফোন রেজিস্ট্রেশন করার নিয়ম