Tips & tricks

জাপান থেকে কতো ডোস করোনা টিকা আসছে বাংলাদেশে

 জাপান থেকে কতো ডোস করোনা টিকা আসছে বাংলাদেশে ,আজকে আপনাদের সাথে আলোচনা করব বাংলাদেশ জাপান থেকে কত ডোস করোনা ভাইরাসের টিকা আমদানি করেছে।বাংলাদেশের সাথে জাপানের খুব সুন্দর একটি বন্ধুত্বমূলক সম্পর্ক রয়েছে।যার কারণে জাপান বাংলাদেশের সেই বন্ধুত্বর দিকে তাকিয়ে অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার 2 লাখ 45 হাজার 200 টিকা উপহার দিয়েছে। বাংলাদেশ-জাপান টিকা দিচ্ছে বৈশ্বিক উদ্যোগের কোভ্যাক্সের এর আওতায়। এই চালানটি হচ্ছে বাংলাদেশের জন্য প্রথম উপহার স্বরূপ।

শুক্রবার দুপুরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছে, উপহার হিসেবে যে টিকা জাপান থেকে বাংলাদেশে পাঠানো হয়েছে তা গ্রহণ করবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। সেখানে আরো উপস্থিত থাকবেন জাপানের রাষ্ট্রদূত । তার মাধ্যমে টিকাগুলো হস্তান্তর করা হবে। আমরা বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম থেকে জানতে পেরেছি যে জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তোশিমিৎসু মোতেগি ১ কোটি ১০ লাখ টিকা ১৫ টি দেশে দেওয়ার গোষনা দিয়েছে। জাপানের এই টিকা দুইভাবে সংগ্রহ করা হয়।প্রথমত বিভিন্ন দেশে তাদের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী টিকা কিনে নেয়। দ্বিতীয়তঃ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে টিকা কিনতে টাকা দেয়।

করোনার টিকা কিনতে কত টাকা লাগবে

বাংলাদেশে আরও তিনটি ধাপে টিকা আসবে।এটিকা যাদের উপর অগ্রাধিকার রয়েছে তারা নেওয়ার পর আর বাকি যত দোষ টিকা থাকবে সেটার উপর নির্ভর করবে বাকিরা কিভাবে টাকা পাবেন।বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেটা বলেছেন সেটা হলো এই টিকা যেভাবে দেয়া হবে সেভাবেই চলবে। তো আমরা যদি সে কথা বিবেচনা করে ভাবি তাহলে ধরা যায় বাকিরাও হয়তো বিনামূল্যে এটিকা পাবেন। বাংলাদেশের সকল শিশুদের কোটি কোটি টিকা দেয়া হচ্ছে সরকার সেটাও কিনে দিচ্ছে। কিন্তু করোনার টিকা হয়তোবা সবাইকে বিনামূল্যে দেয়া হবে।

যদি কোন কোম্পানি বেসরকারিভাবে টিকা আমদানি করতে চায় তাহলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন সেই বিষয় নিয়ে ভাবা হবে।

করণা টিকা আবেদনের নিয়ম

যারা যারা করোনার টিকা আবেদন করতে চান তাদের জন্য এই তথ্যটি খুব হেল্পফুল হবে। কণাটিকে আবেদন করতে চাইলে প্রথমে আপনাকে সুরক্ষা নামক একটি সফটওয়্যার ডাউনলোড করতে হবে। এটি মূলত একটি সরকারি ওয়েবসাইট। এটি আপনার পেয়ে যাবেন গুগোল প্লেস্টরে।

অ্যাপটি ডাউনলোড করার পরে সেখানে গিয়ে আপনি নিবন্ধন বাটনে ক্লিক করে প্রথমে ধরন নির্বাচন করতে হবে। তারপর আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার জন্ম তারিখ দিতে হবে। জাতীয় পরিচয় পত্র না থাকলে আপনি টিকার জন্য আবেদন করতে পারবেন না। কারণ 18 বছর নিচে এর সময়সীমা লোকদের করণা টিকা দেওয়া হয় না।

আপনার তথ্যগুলো সঠিক মত দিলে বাংলা ও ইংরেজি নাম দেখাবে তারপর মোবাইল নম্বর দিতে হবে। মোবাইল নাম্বার দেওয়ার পর দীর্ঘমেয়াদি রোগ বা কো- মরবিডিটি থাকলে সেটাও বলতে হবে। আবেদনকারী প্রার্থীর যদি কোভিদ নাইনটিন সংশ্লিষ্ট কোন কাজের সঙ্গে জড়িত থাকে সেটি বলতে হবে। সর্বশেষ ধাপ হলো টিকা আবেদনকারীর বর্তমান ঠিকানা ও কোন কেন্দ্রে টিকা দিতে ইচ্ছুক সেটি দিলে নিবন্ধন সম্পন্ন হবে।

আরো পড়ুন:

NTRCA (এনটিআরসিএ) ৩য় গণবিজ্ঞপ্তির ফলাফল রেজাল্ট ২০২১ অনলাইনে দেখার নিয়ম