Tips & tricks

তারাবির নামাজের দোয়া এবং মেয়েদের তারাবির পড়ার নিয়ম

তারাবির নামাজের দোয়া এবং মেয়েদের তারাবির পড়ার নিয়ম

সম্মানিত মুসলিম ভাই ও বোনেরা। তারাবির নামাজ নিয়ে অনেকেরই অনেক ধরনের প্রশ্ন রয়েছে। যদি আমাদের এই পোস্টে আপনি মনোযোগ সহকারে সম্পন্ন করেন তাহলে আপনার এই প্রশ্নের সমাধান পেয়ে যাবেন। তারাবির নামাজ সুন্নত নামাজের মতই পড়তে হয়। কিন্তু দুই রাকাত পড়বেন না একসাথে চার রাকাত করবেন এ নিয়ে অনেকেরই অনেক মতভেদ রয়েছে। আজকে আপনাদের সাথে সকল বিস্তারিত তথ্য নিয়ে সঠিক তথ্য আপনাদের সাথে শেয়ার করব। তারাবির নামাজের দোয়া এবং মেয়েদের তারাবির পড়ার নিয়ম নিচে শেয়ার করা হলো।

তারাবি নামাজ রমজানের একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। আল্লাহ তাআলা বলেছেন এই মাসের রোজা রাখা এবং এ মাসে কিয়াম সাধনা করা অতি উত্তম।

আরো পড়ুন: রোজা রাখার নিয়ত-ইফতারের দোয়া ও সেহরি দোয়া রাংলায়

তারাবিহ নামাজের ফজিলত

রমজান মাস নিজেকে আত্মশুদ্ধি করার মাস। এ মাসে তারাবির নামাজ গুনাহ মাফের অন্যতম উপায়। এই মাসে তারাবির নামাজ পড়লে জীবনের গুনা খাতা সমূহ মাফ হয়ে যায় ‌। এই মাসটি হচ্ছে অতীব উত্তম মাস। হাদীসে এ মাসটি সম্পর্কে বলা হয়েছে।

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি রমজানে রাতে বিশ্বাসের সঙ্গে সাওয়াবের আশায় দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করে, তার আগের গোনাহ ক্ষমা করে দেওয়া হয়।’ (বুখারি ও মুসলিম)

তারাবির নামাজের দোয়া

তারাবির নামাজ প্রতি দুই রাকাত করে আদায় করতে হয়। দুইবার দুইবার করে প্রতি চার রাকাত পর পর কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিতে হয়। এই চার রাকাত নামাজ আদায় করার পর বহু প্রচলিত একটি দোয়া পড়তে হয় তা হল।

উচ্চারণ : ‘সুবহানাজিল মুলকি ওয়াল মালাকুতি, সুবহানাজিল ইয্যাতি ওয়াল আঝমাতি ওয়াল হায়বাতি ওয়াল কুদরাতি ওয়াল কিবরিয়ায়ি ওয়াল ঝাবারুতি। সুবহানাল মালিকিল হাইয়্যিল্লাজি লা ইয়ানামু ওয়া লা ইয়ামুতু আবাদান আবাদা সুব্বুহুন কুদ্দুসুন রাব্বুনা ওয়া রাব্বুল মালায়িকাতি ওয়ার রূহ।

উপরে যে দোয়াটি আপনারা দেখতে পারতেছেন। সে দোয়াটি তারাবির নামাজ প্রতি চার ওয়াক্ত পরপর পড়বেন। আপনাদের সুবিধার্থে তাব বাংলায় দেওয়া হয়েছে। যাতে আপনারা অতি সহজে দোয়াটি বুঝতে পারেন এবং সহজে মুখস্ত করে ফেলতে পারেন।

তারাবিহ নামাজের মোনাজাত : উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা ইন্না নাসআলুকাল জান্নাতা ওয়া নাউজুবিকা মিনাননার। ইয়া খালিক্বাল জান্নাতি ওয়ান নার। বিরাহমাতিকা ইয়া আঝিঝু ইয়া গাফফার, ইয়া কারিমু ইয়া সাত্তার, ইয়া রাহিমু ইয়া ঝাব্বার, ইয়া খালিকু ইয়া বাররু। আল্লাহুম্মা আঝিরনা মিনান নার। ইয়া মুঝিরু, ইয়া মুঝিরু, ইয়া মুঝির। বিরাহমাতিকা ইয়া আরহামার রাহিমিন।’

মেয়েদের তারাবি পড়ার নিয়ম

আমাদের প্রত্যেকের ঘরে মা বোন রয়েছে। আমরা ছেলেরা যেমন মসজিদে জামাতের সাথে তারাবির নামাজ আদায় করি। সে ক্ষেত্রে মেয়েরা পরিবারের অন্যান্য সদস্যের সাথে ঘরের ভিতরে জামাতের সাথে তারাবির নামাজ আদায় করতে পারবে। যারা বাড়িতে নামাজ পড়ে তারা বেশিরভাগ সময়ই চার রাকাত করে 20 রাকাত নামাজ আদায় করে। তারাবির নামাজের মধ্যে মহিলা কিংবা পুরুষের কোনো ভেদাভেদ নাই। ছেলেরা মসজিদে গিয়ে জামাতের সাথে সালাত আদায় করে আর মেয়েরা ঘরের ভেতরে সালাত আদায় করে এটুকুই পার্থক্য। কিন্তু তারাবির নামাজ 4 রাকাত করে 20 রাকাত পড়ে থাকি আমরা। এর চেয়ে কম পড়লেও হয় এতে কোনো বাধ্যবাধকতা নেই।