News

শাহজালালের বিমান বন্দরে ‘হ্যাঙ্গারে’ দুই উড়োজাহাজের ধাক্কা, ক্ষয়ক্ষতি

শাহজালালের বিমান বন্দরে ‘হ্যাঙ্গারে’ দুই উড়োজাহাজের ধাক্কা, ক্ষয়ক্ষতি। হযরত শাহজালাল বিমানবন্দর এর হ্যাঙ্গারে একটি উড়োজাহাজ মেরামত করার জন্য রাখা হয়। কিন্তু তারপর পড়ে আর একটি উড়োজাহাজ সে হ্যাঙ্গারের প্রবেশ করানোর সময় বোয়িং 777 উড়োজাহাজের সাথে ধাক্কা লাগে। সিঙ্গারার ভিতরে প্রবেশ করানোর সময় 737 উড়োজাহাজের সামনের অংশের সঙ্গে ভেতরে থাকা উড়োজাহাজ 777 পেছনের অংশ ধাক্কা লাগে 737 উড়োজাহাজের সামনের অংশে।

প্রাথমিক অবস্থায় শাহজালাল বিমানবন্দর এর অধীনে দায়িত্বরত লোকদের দায়ী করা হলেও এর জন্য বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ একটি টিম গঠন করেছে। সে টিমের মাধ্যমে জানা যাবে আসলে মূল ঘটনা কি এবং কিভাবে এই দুর্ঘটনা হল।

দুর্ঘটনায় দুটি বিমানে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এরমধ্যে বোয়িং 777 উড়োজাহাজটি সামনের অংশের আবহাওয়া নির্ধারক যন্ত্রটি ভেঙে গেছে। আবহাওয়া নির্ধারক যন্ত্রটি ক্ষয়ক্ষতি হওয়ার পাশাপাশি সামনের দিকে বেশ অনেকটাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং অনেক যন্ত্রণা কি নষ্ট হয়ে গেছে। সেইসাথে হ্যাঙ্গারে ঢুকানোর সময় বোয়িং 737 এর পেছনের ভিলেজের ভার্টিক্যাল স্ট্যাবিলাইজার ভেঙে গেছে।

শাহজালালের বিমান বন্দরে ‘হ্যাঙ্গারে’ দুই উড়োজাহাজের ধাক্কা, ক্ষয়ক্ষতি

দুটি বিমানেরই অনেক বড় ক্ষতি হয়েছে শাহজালাল বিমানবন্দর সূত্রে জানা গেছে বিমানবন্দর এর হ্যাঙ্গারে আগে থেকেই বিমানের একটি বইয়ের 777 উড়োজাহাজ রক্ষণাবেক্ষণের জন্য রাখা ছিল।সেখানে একটি বিমান রক্ষণাবেক্ষণ রাখা অবস্থায় গতকাল দুপুরে আরেকটি বোয়িং 737 ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য হ্যাঙ্গারের ভিতরে নেওয়ার সময় এক বিশাল ধ্বংসযজ্ঞ ঘটে।

হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরের পাইলট কোন এত অভিজ্ঞতা থাকা সত্ত্বেও তারা কি কারনে এই দুর্ঘটনা ঘটে সেই বিষয়টি তদারক জন্য বিমান কর্তৃপক্ষ একটি টিম গঠন করেছে।

সেইসাথে এয়ারপোর্টে উড়োজাহাজ রক্ষণাবেক্ষণ স্থানে যে দায়িত্বরত ছিলেন তাদের কেউ জিজ্ঞাসাবাদের হবে। কারণ হচ্ছে তারা সেখানে দায়িত্বরত অবস্থায় থাকার কারণে কিভাবে একটি বিমান হ্যাঙ্গারে ঢুকানোর সময় অন্য একটি দাঁড়িয়ে থাকা বিমানের সাথে সংঘর্ষ করল। তারা কি সেখানে দায়িত্বরত অবস্থায় ডিউটি ফাঁকি দিছিলো নাকি অটো কিছু সে বিষয়ে তাদের জবাব দিতে হবে।

বিমান কর্তৃপক্ষ আরো জানিয়েছে একই কারণে এই ধ্বংসযজ্ঞ হলো সে সকল বিষয়ে খুটিনাটি পর্যবেক্ষণ করে যারা এই কর্মকান্ডের সাথে জড়িত তাদেরকে বিচারের আওতায় আনা হবে। সেই সাথে তাদের কর্মকান্ড অনুযায়ী শাস্তি প্রদান করা হবে। যাতে তারা ভবিষ্যতে এরকম কাজ আর না করতে পারে।

এই ঘটনার পর বিমানমন্ত্রী সেখানে উপস্থিত হন এবং সেখানে দায়িত্বরত অফিসারদের সাথে কথা বলেন। তিনি এই ঘটনার সঠিক এবং সুষ্ঠু প্রতিবেদন আশা করছেন।